ব্রেকিং নিউজ
Home | সারা দেশ | আন্দোলনের নামে নাশকতা জনগন আর মেনে নেবেনা : স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী

আন্দোলনের নামে নাশকতা জনগন আর মেনে নেবেনা : স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী

Satkania Ctg Pic 24.12

সাতকানিয়া (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি : আন্দোলনের নামে নাশকতা এদেশের জনগন প্রত্যাখন করেছে। দেশের জনগন চাই উন্নয়ন। বর্তমান সরকার উন্নয়নের প্রকৃষ্ট উদাহরণ। দেশের মানুষ সে কারণে শেখ হাসিনার সরকারকে চাই। বিগত দিনে আন্দোলনের নামে জামায়াত শিবির এ এলাকায় যে হত্যাকান্ড চালিয়ে সামনে তা আর সম্ভব হবেনা। কারণ জনগন বুঝে গেছে নাশকতা করে দেশে উন্নয়ন করা সম্ভব নয়। জ্বালাও পোড়াও অবস্থার কারণে এ এলাকা উন্নয়ন থেকে অনেক পিছিয়ে আছে। ২৪ ডিসেম্বর বুধবার সকাল ১০টায় চট্টগ্রামের সাতকানিয়া বাইতুল ইজ্জত বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ এর ৮৫-তম ব্যাচ রিক্রুটদের সমাপনী কুচকাওয়াজ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল এমপি এ কথা বলেন।
এ সময় উপস্থিত বিজিবির মহা-পরিচালক মেজর জেনারেল আজিজ আহমেদ পিএসসিজি। প্রধান অতিথির সঙ্গে অভিবাদন মঞ্চে উপস্থিত ছিলেন বায়তুল ইজ্জত বর্ডার গার্ড ট্রেনিং সেন্টার এন্ড স্কুলের কমান্ড্যান্ট কর্নেল লুৎফুল কবির ভূঞা পিএসসি। কুচকাওয়াজ অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন বিজিবি চট্টগ্রাম দক্ষিন পূর্ব রিজিয়ন কমান্ডার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. হাবিবুল করিম, বিজিবি বান্দরবান সেক্টরের কমান্ড্যান্ট কর্নেল এম অলিউর রহমান ও চট্টগ্রাম অঞ্চলের সামরিক ও বিজিবি‘র উর্ধ্বতন কর্মকর্তা, সামরিক ও বেসামরিক প্রশাসন, পুলিশ কর্মকর্তা, জনপ্রতিনিধি ও এলাকার গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত থেকে নবীন সৈনিকদের মোনজ্ঞ কুচকাওয়াজ উপভোগ করেন। কুচকাওয়াজের প্যারেড কমান্ডার ছিলেন মেজর মোহাম্মদ আনোয়ারুল মাযহার এবং প্যারেড এ্যাডজুটেন্ট ছিলেন এডি মো. ছোরহাব উদ্দিন। সকাল ৮ঘটিকা হতে পর্যায়ক্রমে মার্কারদের প্যারেডে যোগদান, বাদক দলের মাঠে প্রবেশ, রিক্রুটদের প্যারেড মাঠে প্রবেশ, জাতীয় ও বিজিবি পতাকাবাহী দলের প্রবেশ, প্রধান অতিথির আগমন ও প্যারেড পরিদর্শন, রিক্রুটদের শপথ গ্রহণ, পুরস্কার বিতরণ, প্রধান অতিথির ভাষণ, সংঘবদ্ধ কুচকাওয়াজ, বাদকদলের মার্চ প্রভৃতি আনুষ্ঠানিকতার মধ্য দিয়ে সকাল ১০ঘটিকায় অনুষ্ঠানমালা সমাপ্ত হয়। প্রধান অতিথি ৮৫তম রিক্রুট ব্যাচে মোট ১৪১০ জন নবীন সৈনিকদের মধ্য হতে কুচকাওয়াজে রতন চন্দ্র বর্মন, শারীরিক উৎকর্ষতায় ইমরান আলী, ফায়ারিংয়ে সামিনুর রহমান, সংগীন যুদ্ধে মো. সোহেল রানা ও সর্ব বিষয়ে সেরা রিক্রুট হিসেবে মো. মাইনুল খোন্দকারকে পুরস্কার প্রদান করেন।
প্রধান অতিথি তার ভাষণে বিজিবি সৈনিক ও কর্মকর্তাদের পেশাদারিত্বের ভূয়শী প্রশংসা করে নবীন সৈনিকদেরকে মনোবল, ভ্রাতৃত্ববোধ, শৃংখলা ও দক্ষতার আলোকে আগামীতে অর্পিত দায়িত্ব পালনের নির্দেশ দেন। তিনি স্বাধীনতা যুদ্ধে জীবন উৎসর্গকারি বিজিবি‘র দুই শহীদ এবং অন্যান্য শহীদানসহ মুক্তিযুদ্ধে অনন্য অবদানের জন্য ৮ জন বীর উত্তম, ৩২ জন বীর বিক্রম এবং ৭৭ জন বীর প্রতীক খেতাবে ভূষিতদের শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করেন। তিনি দায়িত্ব পালনে নবীন সৈনিকদেরকে সূর্যের মত উজ্জল, হিমালয়ের মত অটল এবং বজ্রের মত ক্ষিপ্র হবার জন্য উপদেশ দেন। তিনি বিজিবিকে একটি দক্ষ, চৌকষ এবং প্রশিক্ষিত বাহিনী হিসেবে উল্লেখ করে বলেন, একটি বলিষ্ঠ ও দক্ষ বাহিনী গড়ে তোলার জন্য সবচেয়ে বেশী প্রয়োজন কঠোর প্রশিক্ষণ, সৎচরিত্র, মানসিক দৃঢ়তা, অধ্যবসায়, শৃংখলাবোধ, এবং সঠিক নেতৃত্ব। তিনি সৈনিক জীবনে আনুগত্য, শৃংখলা, ধর্মীয় বিশ্বাস, মানবিক এবং নৈতিক মূল্যবোধের প্রতি গুরুত্বারোপ করেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন বর্তমান সরকারের অধিনেই হবে : হানিফ

কুদরতে খোদা সবুজ, কুষ্টিয়া : আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন সংবিধান অনুযায়ী বর্তমান ...

সুন্দরগঞ্জে পৌর কর্মচারীদের কর্ম-বিরতি

আবু বক্কর সিদ্দিক, সুন্দরগঞ্জ (গাইবান্ধা) থেকেঃ  গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ পৌর কর্মকর্তা- কর্মচারীরা কর্ম-বিরতি ...