ব্রেকিং নিউজ
Home | অর্থনীতি | ব্যবসা ও বাণিজ্য | আগৈলঝাড়ায় মালিক-ম্যানেজারের দ্বন্দ্বে অসহায় এনজিও’র কয়েক হাজার সদস্য

আগৈলঝাড়ায় মালিক-ম্যানেজারের দ্বন্দ্বে অসহায় এনজিও’র কয়েক হাজার সদস্য

Agailjhara Photoঅপূর্ব লাল সরকার, আগৈলঝাড়া (বরিশাল) থেকে : বরিশালের আগৈলঝাড়া উপজেলার স্বেচ্ছাসেবী এনজিও আইএফডিসি (ইন্টিগ্রেটেড ভিলেজ ডেভলপমেন্ট ফাউন্ডেশন)’র মালিক ও ম্যানেজারের দ্বন্দ্বে অসহায় হয়ে পরেছে কয়েক হাজার সদস্য। এনজিও’র অর্থ আত্মসাতসহ ম্যানেজার তার নিজের ব্যাপক দুর্নীতি আড়াল করতে উল্টো এনজিও’র পরিচালকের ওপর বিষোদ্গার করে সদস্যদের ক্ষেপিয়ে তুলেছেন বলে ”াঞ্চল্যকর তথ্য পাওয়া গেছে। অবশেষে এনজিও’র সদস্যরা অভিযুক্ত ম্যানেজারের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি করে শুক্রবার বিক্ষোভ প্রদর্শন করেছেন।
অনুসন্ধানে জানা গেছে, এনজিও’র ম্যানেজার আবুল হাসানাতের বিরুদ্ধে সদস্যদের অর্থ আত্মসাতসহ বিভিন্ন অনিয়ম আর দূর্নীতির অভিযোগ রয়েছে। এজন্য তার বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের প্রক্রিয়া চলছিলো। এরমধ্যে কৌশলে ম্যানেজার আবুল হাসানাত সমিতির সদস্যসহ স্থানীয় জনগণের মাঝে পরিচালকের বিরুদ্ধে বিষোদ্গার শুরু করেন। সূত্রে আরো জানা গেছে, ম্যানেজার হাসানাত চলতি বছরের মার্চ মাস থেকে গত ছয়মাস পর্যন্ত প্রধান কার্যালয়ে কোন বিল ভাউচার দাখিল করেনি। এমনকি ঋণ বিতরণ ফরমে পরিচালকের অনুমোদনও নেয়নি। তাছাড়া সমিতির সদস্যদের অভিযোগের ভিত্তিতে এনজিও’র নির্বাহী পরিচালক নরম্যান রড্রিকস্ মাদারীপুর ইউনিট ম্যানেজার সায়েদুর রহমানকে সাথে নিয়ে গত ৩১ আগস্ট আগৈলঝাড়া ব্রাঞ্চ পরিদর্শনে আসেন। পূর্ব পরিকল্পনা অনুযায়ী পরিচালক নরম্যান রড্রিকস্কে ম্যানেজার হাসানাত একটি কক্ষে জিম্মি করে জীবননাশের হুমকি দিয়ে জোরপূর্বক কয়েকটি সাদা কাগজে স্বাক্ষর আদায় করে। পরে তিনি মুক্তি পেয়ে থানায় ঘটনার বর্ণনা দিয়ে একটি অভিযোগ দাখিল করেন। অভিযোগের প্রেক্ষিতে গত ৭ সেপ্টেম্বর পুলিশ হাসানাতকে আটক করে থানা হাজতে রেখে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আবুল কালাম তালুকদারকে বিষয়টি অবহিত করেন। সমস্যা সমাধানের জন্য প্রয়োজনীয় কাগজপত্রসহ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার অফিসে উপস্থিত হয়ে গত ১১ সেপ্টেম্বর উভয়ের উপস্থিতিতে শুনানীর দিন ধার্য করা হয়। এদিকে নিজের দোষ আড়াল করতে শুনানীর দিন ম্যানেজার হাসানাত কৌশলে উপজেলার চারটি ইউনিয়নের সমিতির কয়েক হাজার সদস্যদের ক্ষেপিয়ে তোলেন।
উপজেলার ছবিখাঁরপাড় গ্রামের শাপলা সমিতির সভানেত্রী বিচিত্রা হালদার বলেন, ম্যানেজার আমাদের ভুল বুঝিয়ে পরিচালকের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ করতে বলেছিলেন। এখন দেখি সব দোষই ম্যানেজারের। তাই আমরা তার দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি করছি।
এনজিও’র নির্বাহী পরিচালক নরম্যান রড্রিকস্ জানান, ম্যানেজার হাসানাতের দাখিল করা হিসেবে আপত্তি দেখা দেয়ায় যাতে করে কোন সদস্যর একটা টাকাও ক্ষতিগ্রস্থ না হয় সেজন্য তাকে শুধরিয়ে নেয়ার কথা বলা হয়েছিলো। সে নিজের দোষ পরের ঘাড়ে চাপাতে প্রথমে সদস্যদের ভুল বুঝিয়ে আমার বিরুদ্ধে ক্ষেপিয়ে তুলেছিল। আগামি ১৬ সেপ্টেম্বরের পর পুনরায় আগের মত সকল কার্যক্রম চালু হবে বলেও তিনি উল্লে¬খ করেন।
এব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আবুল কালাম তালুকদার জানান, উপজেলা পরিষদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান জসীম সরদারের উপস্থিতিতে গত ১১ সেপ্টেম্বর এনজিও’র মালিক ও ম্যানেজারের সাথে ব্যক্তিগত সমস্যায় সাধারণ সদস্যরা যাতে ক্ষতিগ্রস্থ না হয় সেজন্য তিনি আপোস মীমাংসার চেষ্টা  করছিলেন। ওইদিন আপোস নিরসন না হওয়ায় আগামী ১৬ সেপ্টেম্বর পুনরায় উভয়কে নিয়ে মীমাংসা বৈঠকের আয়োজন করা হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

মদনে জাতীয় সমবায় দিবস পালিত

সুদর্শন আচার্য্য, মদন (নেত্রকোণা)ঃ বঙ্গবন্ধুর দর্শন, সমবায়ে উন্নয়ন এই প্রতিপাদ্যটি সামনে রেখে ...

পর্তুগালে মুক্তি পাচ্ছে বাংলাদেশী সিনেমা “হাওয়া”

পর্তুগাল প্রতিনিধিঃ ১৫ই অক্টোবর হাওয়া পর্তুগালে বানিজ্যিক ভাবে মুক্তি পাচ্ছে বাংলাদেশী সিনেমা ...