ব্রেকিং নিউজ
Home | জাতীয় | আইনের বাস্তব প্রয়োগ নিশ্চিত করতে হবে : স্পিকার

আইনের বাস্তব প্রয়োগ নিশ্চিত করতে হবে : স্পিকার

shirin sharmin chowdhuryস্টাফ রিপোর্টার : বাংলাদেশ জাতীয় সংসদের স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী বলেছেন, আইনের আশ্রয় গ্রহণ করে জনগণের সহজেই উপকার পাওয়ার লক্ষ্যে বর্তমানে বিদ্যমান সময়োপাযোগী ও যুগোপযোগী আইনসমূহের বাস্তব প্রয়োগ নিশ্চিত করতে বাংলাদেশ আইন সমিতির সদস্যদের আরো বেশী ভূমিকা রাখতে হবে।
তিনি আজ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়স্থ কাজী মোহাহার হোসেন ভবন চত্বর (সায়েন্স এনেক্স) এ বাংলাদেশ আইন সমিতি ২৮তম বার্ষিক সম্মেলনে প্রধান অতিথি’র বক্তব্যে এ কথা বলেন। জাতীয় সংসদ সচিবালয়ের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে আজ একথা বলা হয়।
স্পিকার সংবিধানের মূলনীতি বাস্তবায়নের মাধ্যমে বাংলাদেশের একটি অসাম্প্রদায়িক রাষ্ট্র হিসেবে গড়ে দেশের গণতন্ত্রকে আরো শক্তিশালী করার জন্য বাংলাদেশ আইন সমিতির সকল সদস্যকে তাদের নিজ নিজ অবস্থানে থেকে কাজ করার আহ্বান জানান। তিনি বলেন, দেশে আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা করে জাতিরজনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানের স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়তে সকলকে এক সঙ্গে কাজ করতে হবে। আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা করা গেলেই উন্নয়ন ত্বরাম্বিত হয়। তাই আইনের শাসন সমুন্নত রাখতে বাংলাদেশ আইন সমিতি অব্যাহত প্রয়াস চালিয়ে যাবে এটাই সকলের প্রত্যাশা। তিনি আশা প্রকাশ করেন মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও গণতন্ত্রকে সমুন্নত রেখে দেশে আইনের শাসন ও ন্যায় বিচার নিশ্চিত করতে বাংলাদেশ আইন সমিতি অগ্রণী ভূমিকা পালন করে যাবে।
তিনি বলেন, দেশের অর্ধেক জনগোষ্ঠী নারী। তাদের পিছিয়ে রেখে দেশের র্আথ-সামাজিক উন্নয়ন সম্ভব নয়। নারীদেরকে উন্নয়নের মুল ধারায় যুক্ত করতে হবে। দেশের উন্নয়নের ধারা থেকে নারীরা যাতে বাদ না পড়ে সে দিকে লক্ষ্য রাখতে হবে। বাংলাদেশ আইন সমিতির মূল নেতৃত্বেও নারীদের ভূমিকা রাখার সুযোগ আরো সম্প্রসারিত কতে হবে।
বাংলাদেশ আইন সমিতিকে একটি পরিবারের সাথে তুলনা করে জাতীয় সংসদের স্পিকার বলেন, দলমত নির্বিশেষে সকল ভেদাভেদের উর্ধ্বে উঠে আইন সমিতির সদস্য হিসেবে জাতীয় জীবনের বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কার্যক্রমে অংশগ্রহণের মাধ্যমে দেশের সার্বিক উন্নয়নের জন্য বাংলাদেশ আইন সমিতির সদস্যদের কাজ করে যেতে হবে।
ধনী-দরিদ্রের বৈষম্য দূর করা দেশের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নের পূর্বশর্ত উল্লেখ করে তিনি বলেন, সমাজের পিছেয়ে পড়া জনগোষ্ঠীকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য বাংলাদেশ আইন সমিতির রয়েছে সামাজিক দায়বদ্ধতা। এই দায়বদ্ধতা থেকে বাংলদেশের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে বাংলাদেশ আই সমিতির সদস্যদের স্ব-স্ব অবস্থানে থেকে ভূমিকা রাখার সুযোগ রয়েছে।
আইনজীবীরা সামাজিক পরিবর্তনের কান্ডারী উল্লেখ করে স্পিকার বলেন, ভাষা আন্দোলন থেকে শুরু করে সকল গণতান্ত্রিক আন্দোলনে আইনজীবীরা মুখ্য ভূমিকা পালন করে আসছে। আইনজীবীরা তাদের উপর অর্পিত দায়িত্ব যথাযথভাবে পালন করলে দেশে সামাজিক ন্যায় বিচার আরো ত্বরাম্বিত হবে।
বাংলাদেশ আইন সমিতি’র সভাপতি এ কে আফজালুল মনিরের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তৃতা করেন বাংলাদেশ আইন সমিতির সদস্য শ্রম ও কর্মসংস্থান প্রতিমন্ত্রী মো. মুজিবুল হক এমপি, বিচারপতি মো. মিফতাহ উদ্দিন চৌধুরী রুমী, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন অনুষদের ডীন অধ্যাপক ড. তাসলিমা মনসুর, বাংলাদেশ আইন সমিতির সাবেক সভাপতি, সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির আহ্বায়ক ও বাংলাদেশ আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি মোল্লা মো. আবু কাওছার ও বাংলাদেশ আইন সমিতির প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি আবদুল্লাহ মাহমুদ হাসান।
বিচারপতি এ কে এম শহীদুল হকসহ বাংলাদেশ আইন সমিতি’র অন্যান্য সদস্যবৃন্দ এ সময় উপস্থিত ছিলেন।
এর আগে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক বাংলাদেশ আইন সমিতি ২৮তম বার্ষিক সম্মেলনের উদ্বোধন করেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

কক্সবাজারের ফাতেরঘোনার ৪ হাজার ভুমিহীন পরিবার

শাহজাহান চৌধুরী শাহীন, কক্সবাজার : কক্সবাজার পৌরসভার পুর্ব লাইট হাউজ ফাতেরঘোনা এলাকার ...

গোপালগঞ্জে কচুরিপানার উপর ভাসমান পদ্ধতিতে নিরাপদ সবজি চাষে লাভবান কৃষকরা

এম শিমুল খান, গোপালগঞ্জ : বাড়ির আঙ্গিনা ও পতিত জমিতে কচুরিপানার উপর ...