ব্রেকিং নিউজ
Home | আন্তর্জাতিক | অক্সফোর্ডশায়ারে ছয় রেস্টুরেন্টে অভিযান : ১৭ বাংলাদেশী আটক

অক্সফোর্ডশায়ারে ছয় রেস্টুরেন্টে অভিযান : ১৭ বাংলাদেশী আটক

ukba_13আবদাল হোসাইন লন্ডন থেকে: অক্সফোর্ডশায়ারের ডিডকট্ এলাকার বিভিন্ন রেস্টুরেন্টে সমন্বিত অভিযান চালিয়ে ১৭ জন বাংলাদেশীকে অবৈধভাবে কাজ করা কিংবা ভিসার মেয়াদ শেষ হয়ে যাওয়ার কারণে আটক করেছেন হোম অফিসের ইমিগ্রেশন কর্মকর্তারা। গোপন সূত্রে খবর পেয়ে গত ৬ মার্চ বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় ডিডকটের ব্রডওয়ের ছয়টি রেস্টুরেন্ট ও টেকওয়েতে একযোগে অভিযান চালিয়ে এসকল লোককে চিহ্নিত করা হয়। অভিযান চলাকালে ইমিগ্রেশন কর্মকর্তারা রেস্টুরেন্টে কর্মরত লোকজনের ব্রিটেনে কাজের অধিকার রয়েছে কিনা তা পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে দেখেন। ছয়টি রেস্টুরেন্টই কাছাকাছি অবস্থিত এবং মালিকানা সূত্রে অবিচ্ছিন্ন বলে ধারণা করছেন ইমিগ্রেশন কর্মকর্তারা।

ইন্ডিয়ান ড্রিমস রেস্টুরেন্টে পাঁচ জনকে চিহ্নিত করা হয় যাদের বয়স ২৭ থেকে ৩৮ বছরের মধ্যে। এদের মধ্যে চার জনেরই ভিসার মেয়াদ শেষ হয়ে গেছে আর অপর জন ব্রিটেনে অবৈধভাবে প্রবেশ করেছেন। একই রেস্টুরেন্টে আরও তিন বাংলাদেশীকে খুঁজে পায় ইমিগ্রেশন পুলিস যাদের কাজ করার অধিকার নেই; তবে তাদেরকে গ্রেফতার করা হয়নি।
‘কলকাতা’ রেস্টুরেন্ট থেকে ২৫ থেকে ৫০ বছরের পাঁচ ব্যক্তিকে খুঁজে পায় ইমিগ্রেশন পুলিস। এদের মধ্যে তিন জনের ভিসার মেয়াদ শেষ হয়ে গেছে, একজন ভিসার শর্ত ভঙ্গ করে কাজ করছিলেন এবং অন্য জন ডিপোর্টেশন অর্ডারের আওতায় রয়েছেন।
‘ব্রডওয়ে স্পাইস’ থেকে ৩০, ৩৭ ও ৪৪ বছর বয়সের তিন অবৈধ বাংলাদেশীকে আটক করা হয়। এদের সকলেরই ভিসার মেয়াদ শেষ হয়ে গেছে। ‘এঞ্জেল ফল্স’ রেস্টুরেন্ট থেকে একজন বাংলাদেশী এবং একজন পাকিস্তানি লোককে আটক করা হয়। বাংলাদেশী ব্যক্তি ভিসার শর্ত ভঙ্গ করে কাজ করছিলেন আর পাকিস্তানের নাগরিকের ভিসার মেয়াদ শেষ হয়ে গিয়েছিল।
প্রিন্স অফ ইন্ডিয়া রেস্টুরেন্ট থেকে ৩৯ বছর বয়স্ক এক বাংলাদেশীকে আটক করা হয় যার ভিসার মেয়াদ শেষ হয়ে গিয়েছিল।
স্পাইসেস তান্দুরি থেকে ৩৩ বছর বয়স্ক এক বাংলাদেশীকে আটক করা হয়। তার ব্রিটেনে কাজ করার কোনো অনুমতি নেই। তবে তাকে আপাতত: জামিনে মুক্তি দেওয়া হয়েছে।
সমন্বিত অভিযানে আটক হওয়া বাংলাদেশীদের দেশে ফেরত পাঠানোর প্রক্রিয়া চলছে। তবে ইন্ডিয়ান ড্রিমস রেস্টুরেন্ট থেকে আটক হওয়া দুই জন এবং স্পাইসেস তান্দুরি থেকে আটক হওয়া একজনকে দেশে ফেরত পাঠানো হচ্ছে না। তাদেরকে জামিনে মুক্তি দেওয়া হয়েছে; অবশ্য ব্রিটেনে বৈধভাবে থাকার অনুমতি না থাকলে তাদেরকে দেশে ফেরত পাঠানো হবে। অন্যদিকে, ইন্ডিয়ান ড্রিমস রেস্টুরেন্টে অবৈধভাবে কাজ করলেও তিন ব্যক্তিকে আটক করা হয়নি। কিন্তু তাদের বিষয়টি সুরাহা না হওয়া পর্যন্ত হোম অফিসে তাদেরকে নিয়মিত রিপোর্ট করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। ছয়টি রেস্টুরেন্টেই জরিমানার নোটিস পাঠিয়েছে ইমিগ্রেশন কর্তৃপক্ষ। সঠিক নিয়োগ প্রক্রিয়া যাচাই-বাছাই করে এই সকল লোককে কাজে নিয়োগের বিষয়টি প্রমাণ করতে না পারলে প্রত্যেক ব্যক্তির বিপরীতে দশ হাজার পাউন্ড করে জরিমানা গুনতে হবে রেস্টুরেন্ট মালিকদের। সেই হিসাবে ইন্ডিয়ান ড্রিমসকে ৮০ হাজার পাউন্ড, কলকাতা রেস্টুরেন্টকে ৫০ হাজার পাউন্ড, ব্রডওয়ে স্পাইসকে ৩০ হাজার পাউন্ড, এঞ্জেল ফল্সকে ২০ হাজার পাউন্ড এবং প্রিন্স অফ ইন্ডিয়া ও স্পাইস তান্দুরি উভয়কে ১০ হাজার পাউন্ড পর্যন্ত জরিমানা করা হতে পারে। সব মিলিয়ে জরিমানার পরিমাণ দাঁড়াতে পারে ২ লক্ষ পাউন্ড পর্যন্ত।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

এবার ইরাককে কড়া ভাষায় হুমকি ট্রাম্পের

ইন্টারন্যাশনাল ডেস্ক : মার্কিন হামলায় ইরানের শীর্ষ জেনারেল কাসেম সোলায়মানি নিহতের পর ...

যুক্তরাষ্ট্রের সরকারি ওয়েবসাইট ইরানি হ্যাকারদের কবলে

ইন্টারন্যাশনাল ডেস্ক : ইরানের শীর্ষ জেনারেল কাসেম সোলায়মানি হত্যায় দেশটির সঙ্গে মার্কিন ...